করোনার থেকে সুস্থ হওয়াদের প্রয়োজন ফুসফুসের ব্যায়াম

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন পৌনে তিন কোটি মানুষ। মৃত্যু ছাড়িয়েছে ৮ লাখ ৮৭ হাজারে। প্রতিদিন যোগ হচ্ছে নতুন আক্রান্ত এবং মৃত্যুর মিছিল। করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠলেই যে আপনার বিপদ কেটে গেছে, তা কিন্তু নয়। সেরে ওঠার পর তাদের জন্যে ফুসফুসের ব্যায়াম বেশ জরুরি। এ বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ তুলে ধরা হলো:

ফ্রি হ্যান্ড ব্যায়াম: জোর বাড়ানোর জন্য প্লাংক, সাইড প্লাংক, পুশ আপ ইত্যাদি ব্যায়াম করতে পারেন। ফুসফুসে অক্সিজেন সঞ্চালন বৃদ্ধি করতে দাঁড়িয়ে দীর্ঘ শ্বাস নেওয়ার চেষ্টা করুন। এছাড়া ব্যায়াম করার সময় জোরে শ্বাস নিতে হবে আর ধীরে ছাড়তে হবে। এতে দেহের পেশি শক্তি বৃদ্ধি পায়।

যোগব্যায়াম: শরীরে অক্সিজেন সরবরাহ বাড়াতে দুই হাত সোজা করে পদ্মাসনে বসুন, মেরুদণ্ড সোজা রেখে নাক দিয়ে শ্বাস নিয়ে মুখ দিয়ে ধীরে ধীরে ছাড়ুন। এক আঙুলে ডান দিকের নাক চেপে ধরে বাঁ দিক দিয়ে শ্বাস নিন। পুরো শ্বাস নিয়ে ধীরে ধীরে ছাড়ুন। মাউন্টেন যোগা বা তাড়াসনও বেশ কার্যকর ফুসফুসের কর্মক্ষতা বৃদ্ধিতে।

হাঁটুন: করোনা থেকে সেরে ওঠার পর নিয়মিত হাঁটার চেষ্টা করুন। এতে নিজের শরীরে দমের অবস্থা কেমন সেটাও বুঝতে পারবেন। স্বাভাবিকভাবে আগের থেকে ফুসফুসে অক্সিজেনের পরিমাণ কম থাকায় অল্পতেই হাঁপিয়ে যাবেন। এতে কোনো সমস্যা নেই। প্রতিদিন ধৈর্য ধরে হাঁটলে ফুসফুসের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে।

ওয়েট ট্রেনিং: করোনা থেকে সেরে ওঠার পরও ক্লান্তি কত দিন থাকবে তা বলা মুশকিল। কারো ক্লান্তি মাসখানেক কিংবা আরো বেশিও থাকতে পারে। তবে দেহের কার্যক্ষমতা যে হ্রাস পাবে এতে সন্দেহ নেই। হাঁটাচলা ও হালকা ফ্রি হ্যান্ডের পাশাপাশি ওয়েট ট্রেনিং ব্যায়ামের অভ্যাস গড়ে উঠলে শরীরের কার্যক্ষমতাও বৃদ্ধি পাবে। দীর্ঘ শ্বাস ও ধীরে শ্বাস ছাড়ার মধ্য দিয়ে ফুসফুসে অক্সিজেনের সঞ্চালনও বৃদ্ধি পাবে।

যোগব্যায়াম

শুয়ে ব্যায়াম: বুকে বালিশ দিয়ে উপুড় হয়ে শুয়ে জোরে শ্বাস নিন। ৫-১০ সেকেন্ড ধরে রাখুন। এবার ধীরে ধীরে শ্বাস ছাড়ুন। এভাবে বারবার শ্বাস নিন আর ছাড়ুন। পজিশনটি করোনা রোগীর জন্য খুবই উপকারী। এটি আপনার ফুসফুস থেকে রক্তে অক্সিজেন বিনিময়ে সহায়তা করবে।

পর্যাপ্ত ঘুম: ঘুমের বিকল্প নেই। সময়মতো ঘুমাতে যাওয়া এবং তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে ওঠার অভ্যাস করতে হবে। যেহেতু শরীর অল্প কাজেই দুর্বল হয়ে পড়ে; তাই ঘুমের পরিমাণ বাড়াতে হবে। সকালে বারান্দা কিংবা ছাদে থাকার চেষ্টা করুন। বিশেষ করে ভোরবেলায় বাতাসে অক্সিজেনের পরিমাণ বেশি থাকে। এই সময়ের বাতাস আপনার ফুসফুসের জন্য উপকারী।

দুর্দান্ত সব বাংলা কন্টেন্ট এবং লাইভ টিভি দেখতে ছবিতে ক্লিক করুণ

আরোও পড়ুনঃ