গল্পের প্রয়োজনে আপত্তিকর দৃশ্য ও সংলাপে আপত্তি নেই- নোভা

নোভা ফিরোজ | বঙ্গ
নোভা ফিরোজ | ছবি সংগৃহীত

নোভা | ছোট পর্দার প্রিয়মুখ মডেল-অভিনেত্রী নোভা ফিরোজ। তার রূপ-সৌন্দর্যের গুণে খুব স্বল্প সময়ের মধ্যেই শোবিজ অঙ্গনে সবার নজর কেড়ে নিয়েছেন। অভিনয়ের ষোলো কলা রপ্ত করে তিনি প্রতিনিয়ত এগিয়ে চলছেন।

প্রায় আট বছর পর আবারো ধারাবাহিক নাটকে অভিনয় করছেন। আগামী মাস থেকে শুটিং শুরু হচ্ছে আরটিভির ‘গোলমাল’ শিরোনামের প্রতিদিনের এই ধারাবাহিকের। এর প্রধান চরিত্রে দেখা যাবে নোভাকে।

সুপারহিট নাটক মুভি ও লাইভ টিভি দেখুন ইমেজে ক্লিক করে

তিনি বলেন, ‘লম্বা একটা সময় পর আবারো ধারাবাহিকে অভিনয় করতে যাচ্ছি। তাই ভালো কিছু দিয়ে যাত্রা হোক এটা চেয়েছি। আপাতত এর বেশি কিছু বলতে চাই না। বলতে পারেন, আমার ভক্ত ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের জন্য চমক কিছু থাকছে।’

নোভা ফিরোজ | বঙ্গ
নোভা ফিরোজ | ছবি সংগৃহীত

এই অভিনেত্রীকে এর আগে দেখা গেছে আফসানা মিমির জনপ্রিয় ‘ডলস হাউজ’ শিরোনামের একটি ধারাবাহিক ও খন্ড নাটকে।

এছাড়া তার অভিনীত ‘মহানগর’ ও ‘আড্ডা’ শিরোনামের ধারাবাহিকও প্রশংসিত ছিলো। এদিকে লকডাউনের পর এরই মধ্যে এই অভিনেত্রী ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়েছেন। বাবা দিবসের জন্য রনি ভৌমিকের পরিচালনায় একটি ওভিসির কাজ করেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে নোভা বলেন, ‘স্বাস্থ্যবিধি মেনেই কাজটি করেছি। আমাদের জীবন নির্বাহ কাজের ওপর ডিপেন্ড করে। তাই সব সময় ঘরে থাকা যায় না। তবে সতর্কতা অবলম্বন করেই সবার কাজ করা উচিত।’

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় দেশের কয়েকটি ওয়েব সিরিজের আপত্তিকর দৃশ্য ও সংলাপ নিয়ে বেশ আলোচনা-সমালোচনায় চলছে। এ নিয়ে আপনার মন্তব্য কী? উত্তরে নোভা বলেন, ‘ওয়েব সিরিজ টিভি চ্যানেলের জন্য নির্মাণ হয় না। এটি ডিজিটাল প্লাটফর্মে দেখতে হয়। ডিজিটাল প্লাটফর্ম সারা বিশ্বময়। আমি মনে করি ওয়েব সিরিজ দেখার সময় আন্তর্জাতিক বিষয়টি মাথায় রাখা প্রয়োজন। আমিও এর মধ্যে একটি সিরিজ দেখেছি। আমার কাছে ভালো লেগেছে।’

নোভা ফিরোজ | বঙ্গ
নোভা ফিরোজ | ছবি সংগৃহীত
নোভার কথার প্রসঙ্গ ধরে জানতে চাওয়া এই ধরনের ওয়েব সিরিজে কাজ করতে কি আগ্রহী? উত্তরে তিনি বলেন, ‘আমি আগে দেখবো আমার চরিত্রটির দৃশ্যগুলো গল্পের প্রয়োজনে নাকি কেবল দর্শকদের আকর্ষণ করার জন্য। পরিচালকের সঙ্গে চরিত্রটি নিয়ে আলোচনা করবো। গল্পের প্রয়োজনে হলে আমার আপত্তি নেই।’

করোনাভাইরাসের কারণে দীর্ঘ সময় সবাইকে ঘরে থাকতে হচ্ছে। কাজের বাইরে এই সময়টা কীভাবে কাটছে? তিনি বলেন, ‘রান্নাবান্না করছি। একই সাথে ছেলেকে সময় দিচ্ছি। এই সময়ে আমার একটা বিষয় উপলব্ধি হয়েছে। সেটি হলো আমরা নিজেদের বুঝতে শিখছি। আমরা সবাই একটা দৌড় প্রতিযোগিতার মধ্যে ছিলাম। কেন আর কিসের জন্য প্রতিযোগিতা সেটি বোঝার সময় ছিলো না। আমাদের উচিত কাছের মানুষদের সময় দেওয়া। একইসাথে নিজের প্রতিও যত্নশীল হতে হবে।’

আরও পড়ুন:

সুপারহিট নাটক দেখতে নিচের ইমেজে ক্লিক করুন:

নোভা বঙ্গ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *