করোনার সময়ে ভ্রমণে যে বিষয়গুলো খেয়াল রাখবেন

করোনায় ভ্রমণ
করোনায় ভ্রমণ

করোনাভাইরাসের দাপটে স্থবির হয়ে পড়েছিল বিশ্ব। দেশ-বিদেশের সব ধরনের ভ্রমণ বন্ধ ছিল। যদিও সম্প্রতি স্বাস্থ্যবিধি মেনে কিছুটা কার্যক্রম চলছে পর্যটন শিল্পে।

বিধি-নিষেধ মেনেই যেতে হচ্ছে বিভিন্ন স্পটে। কিছু পর্যটন কেন্দ্রে যেতে হচ্ছে অনুমতি নিয়ে। তবে সমুদ্র-সৈকত, পাহাড়, বন বা বিনোদন রিসোর্টে যাওয়া যাচ্ছে।

মূল কথা হচ্ছে- যেখানেই যাবেন নিরাপদ থাকার দায়িত্ব আপনার। তাই আসুন জেনে নেই করোনাকালে ভ্রমণে করণীয় ও বর্জনীয় সম্পর্কে-

• ভ্রমণে যাওয়ার আগে নিজের করোনা পরীক্ষা করে নিন।

• যদি কোনো হোটেল-মোটেল বা রিসোর্ট করোনার পরীক্ষার রিপোর্ট চায়, তাতে আপনার সুবিধা হবে।

• কোনো হোটেল বা ট্রাভেল কোম্পানি বয়স্ক এবং শিশুদের সঙ্গে নিতে নিষেধ করছে কি না জেনে নিন।

• অতিথি চেকআউটের পর কর্তৃপক্ষ কি আগের মতো বিছানার চাদর, বালিশের কভার, পর্দা, কুশন বদলে দিচ্ছে কি না?

• প্রয়োজনীয় ওষুধ, অতিরিক্ত মাস্ক, গ্লাভস, ডিসপোজেবল ওয়াইপস, হেড কভার, সাবান এবং পর্যাপ্ত স্যানিটাইজার নিয়ে যাবেন।

• যেসব জায়গায় বেশি হাত দেওয়া হয়, হোটেলে ঢুকেই সেগুলো নিজেরা স্যানিটাইজ করে নেবেন।

• হোটেলের কক্ষ থেকে বের হলেই মাস্ক, সানগ্লাস ও হেয়ারকভার পরে নিন।

• বাইরে থেকে এসেই গোসল করবেন। এমনকি পরনের জামা-কাপড় সঙ্গে সঙ্গে ধুয়ে নিন।

• নিজের গাড়ি থাকলে ভালো। না হলে স্থানীয় গাড়ি ব্যবহার করলে বসার জায়গাটা নিরাপদ করে নেবেন।

• বেড়াতে গিয়েও নিরাপদ শারীরিক দূরত্বের কথা মনে রাখবেন। সবসময় নির্দেশিত নির্দিষ্ট বৃত্তে অবস্থান করবেন।

• খাবার হোটেলের কক্ষে এনে খাবেন। খাবারের প্যাকেট বা পানির বোতল খোলার আগে সাবান দিয়ে হাত-মুখ ধুয়ে নিন।

• পারলে সিঁড়ি দিয়ে ওঠানামা করুন। লিফট বা এস্কেলেটর ব্যবহার না করাই ভালো।

দুর্দান্ত সব বাংলা কন্টেন্ট এবং লাইভ টিভি দেখতে ছবিতে ক্লিক করুণ
দুর্দান্ত সব বাংলা কন্টেন্ট এবং লাইভ টিভি দেখতে ছবিতে ক্লিক করুণ

• সৈকত যদি ফাঁকা থাকে তাহলে সমুদ্রস্নানে কোনো সমস্যা হওয়ার কথা নয়।

• এলাকার বাসিন্দারা পর্যটক দেখলে আপত্তি করেন কি না জেনে নিন। জনবহুল এলাকায় না যাওয়াই ভালো।

• সবসময় এসির মধ্যে থাকবেন না। পারলে মাঝে মাঝে জানালা খুলে রাখবেন।

• পারলে স্পা রুম, সুইমিং পুল ও রাইডগুলো এড়িয়ে চলাই ভালো।

• বেড়াতে যাওয়ার আগে যেকোনো শারীরিক সমস্যা হলে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া যাবেন না।

আরোও পড়ুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *